তপনের একই পরিবারের ৫ জনের মৃত্যুর ঘটনায় খুনের অভিযোগ মৃতের দিদির, ফরেনসিক তদন্তের জন্য বাড়ি সীল পুলিশের।

0
49

নিজস্ব সংবাদদাতা,তপন, ৯ নভেম্বর; একই পরিবারের ৫ সদস্যের রহস্যজনক মৃত্যুর ঘটনায় খুনের অভিযোগে অনড় মৃতের দিদি। কোন প্রকার তদন্ত ছাড়াই এই ঘটনাকে আত্মহত্যা বলে পুলিশের দাবি, উড়িয়ে দিয়েছেন মৃতের দিদি ললিতা সরকার। ঘটনার প্রকৃত তদন্ত চেয়ে এদিন তখন থানায় লিখিত অভিযোগ করবেন বলে জানিয়েছেন ওই মহিলা। তপন থানার পুলিশ ঘটনার ফরেনসিক টেস্টের জন্য মৃতের বাড়ি চারি ধার দিয়ে ঘিরে দিয়েছেন। নির্দিষ্ট দপ্তরের কাছে সেই মর্মে একটি আবেদনও পাঠিয়েছে তপন থানা। সূত্রের খবর এই ঘটনায় সিআইডি টিমকে দিয়েও তদন্ত করানো হতে পারে।
ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে না এলেও প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ এই ঘটনাকে পরিবারের সদস্যদের খুন করে নিজে আত্মহত্যা করেছে বাড়ির মালিক বলে চালিয়ে দেবার চেষ্টা করলেও তা মানতে নারাজ মৃতের দিদি। কেননা মৃতদেহ উদ্ধারের পর বেশকিছু ঘটনা খুনের অভিযোগকেই জোড়ালো করেছে। যার মধ্যে অন্যতম বাড়ির মালিক মৃত অনু বর্মনের হাতে কলম দিয়ে লিখে রাখা চারজনের নাম এবং ঘটনার পরেই এলাকা থেকে তাদের বেপাত্তা হওয়া। দুদিন ধরে তারাই হুমকি দিচ্ছিল বলেও সেই লেখায় উল্লেখ করেছেন মৃত অনু। আর যাকে ঘিরেই খুনের অভিযোগ স্পস্ট হয়েছে। অন্যদিকে পরিবারের সকলকে খুন করে নিজে আত্মহত্যা করলে ঘরের আলমারি থেকে সোনাদানা সহ টাকাপয়সা গায়েব হলো কিভাবে? মৃতের দিদির দাবি, লক্ষ্মী কেনা সোনার গহনা সহ আগের সমস্ত অলঙ্কার উধাও। একইসাথে নগদ দেড় লক্ষ টাকা আলমারি থেকে গায়ের। পরিকল্পিতভাবে সকলকে খুন করে সোনার গহনা টাকা-পয়সা নিয়ে চম্পট দিয়েছে দুষ্কৃতীরা বলে দাবি মৃতের দিদির। যে চারজনের নাম তার দাদা হাতে লিখে গিয়েছেন তারা এই খুনের ঘটনায় জড়িত বলে সন্দেহ।
মৃতের দিদি ললিতা সরকার জানিয়েছেন, ঘটনা খুন ছাড়া অন্য কিছু হতে পারে না। আলমারি থেকে সোনাদানা সহ টাকা-পয়সা উধাও এবং তার দাদার হাতে লেখা চারজনের নাম ঘটনাস্থল থেকে ধারালো অস্ত্র উদ্ধার এমন সব ঘটনা প্রমাণ করে খুন হয়েছে। তিনি ঘটনার তদন্ত চেয়ে তপন থানায় অভিযোগ করবেন।
তপন থানার ওসি সৎকার সংবো জানিয়েছেন, ময়নাতদন্তের রিপোর্টে এখনো হাতে আসেনি। এই ঘটনায় ফরেনসিক তদন্তের জন্য নির্দিষ্ট দপ্তরে আবেদন করা হয়েছে। বর্তমানে মৃতের বাড়ি সিল করে চারদিক থেকে ঘিরে রাখা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here